আমি একটু পরপর ফ্লাইটে জিজ্ঞেস করছিলাম কখন ল্যান্ড করব: শাকিব খান

ঢালিউডের জনপ্রিয় চিত্রনায়ক শাকিব খান আজ দেশে ফিরেছেন। ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নেমেই তিনি ভক্তদের মুখোমুখি হন। সেখানে অনেক ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষী তাঁকে শুভেচ্ছা জানান। এ সময় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন শাকিব খান।

তিনি দেশের মাটিতে পা দিয়ে ভালো লাগার অনুভূতি ভক্তদের সঙ্গে ভাগাভাগি করে বলেন, ‘যখন যুক্তরাষ্ট্রে ছিলাম, তখন ভাবছিলাম দেশে কখন যাব, কখন যাব। যখন ফ্লাইটে ছিলাম, তখন একটু পরপর জিজ্ঞাসা করেছি, কখন ল্যান্ড করব। এখন দেশের মাটিতে পা রেখেছি। আমাকে পেয়ে ভক্তরা যেমন উত্তেজিত, তেমনি আমিও সেই একই উত্তেজনা আমার মধ্যেই কাজ করছে।’

ঢাকার ফেরার বিমানে চড়ার আগে নিউইয়র্কের জনএফ কেনেডি বিমানবন্দরে শাকিব খানছবি : শাকিব খানের সৌজন্যে
আগত ভক্ত ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের উদ্দেশে শাকিব খান আরও বলেন, ‘আমি সবার কাছে কৃতজ্ঞ। আপনারা সব সময় আমাকে ভালোবাসেন। এত ভালোবাসা দেন সব সময়, এটা আমার কাছে অমূল্য সম্পদ।

আপনারা সবাই যে আমাকে মিস করেছেন, এত ভালোবেসেছেন, সত্যই আমি স্পিচলেস। আমিও দারুণ খুশি।’ এ সময় সাংবাদিকদের নানা প্রশ্নের উত্তর দেন তিনি। এক সাংবাদিক জানতে চান, ভক্তদের কী সুখবর দেবেন? শাকিব বলেন, ‘ভক্তদের ভালোবাসায় আমি মুগ্ধ। তাদের জন্য ভালো স্পেশাল কাজ দিয়ে সুখবর দেব। তবে ভালো ভালো নিউজ সবার জন্য ওয়েট করছে। এটুকু বলব, সামনে অনেক ভালো কিছু অপেক্ষা করছে। আর আমি যুক্তরাষ্ট্রে কাজে ছিলাম, এখনো কাজেই আছি।’

শাকিব খানের দেশে আসার খবরে কয়েক দিন ধরেই ফেসবুক গ্রুপ ও শাকিব–ভক্তদের মধ্যে বিপুল আগ্রহ দেখা যায়। কেউ ঢাকার বাইরে থেকেও প্রিয় তারকাকে শুভেচ্ছা জানাতে এসেছেন। অনেকেই ঢাকার নানা প্রান্ত থেকে জড়ো হয়েছিলেন। তাঁরা ব্যানার নিয়ে শাকিবের অপেক্ষায় ছিলেন। ৯ মাস যুক্তরাষ্ট্রে কীভাবে কেটেছে, এ প্রসঙ্গে শাকিব খান বলেন, ‘আমাদের

বাণিজ্যিক সিনেমাকে কীভাবে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পৌঁছানো যায়, সেটা নিয়েই দীর্ঘ ৯ মাস আমার চিন্তা ছিল। বলা যায়, এটাই ছিল আমার মূল লক্ষ্য। কারণ, এখন ভাষা কোনো বিষয় নয়। সারা বিশ্বে এগিয়ে যাচ্ছে কোরিয়াসহ নানা দেশের সিনেমা। এর মধ্যেই আপনারা দেখেছেন আমেরিকান ক্রু, আর্টিস্টদের নিয়ে সিনেমার মহরত করেছি। এ ছাড়া আন্তর্জাতিক যে প্ল্যাটফর্ম, সেখানেও…আমি তো সবকিছু মিলেই বললাম, মাত্র তো পা রাখলাম। ভালো ভালো অনেক সুখবর অপেক্ষা করছে।’

ব্যক্তিগত প্রয়োজনে টানা ৯ মাস যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে ছিলেন শাকিব খান। এই সময়ে তিনি কিছু কাজের পরিকল্পনা করলেও সেভাবে শুটিং নিয়ে তাঁর ব্যস্ততা ছিল না। এর মাঝেই আগস্ট মাসের শেষের দিকে জানা যায়, তিনি দেশে ফিরছেন। গতকাল ফ্লাইটে ওঠার সময় তিনি ফেসবুক স্ট্যাটাসে লেখেন, ‘জীবন যখনই আমাকে কোনো চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি করেছে অথবা নিজেই

যখন নিজেকে দিয়েছি ভেঙে গড়ার চ্যালেঞ্জ, ওপরওয়ালার রহমতে এবং আমার লাখোকোটি ভক্তের ভালোবাসায় সব সময় আমি জয়ী হয়েছি। যুক্তরাষ্ট্রে বিগত নয়টা মাসও আমার জীবনে ছিল একটি চ্যালেঞ্জের মতো এবং আবারও আমি আপনাদের ভালোবাসায় তা সফলভাবে সম্পন্ন করতে পেরেছি।’

শাকিব খান নিউইয়র্কে থাকা অবস্থায় বাংলাদেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে তাঁর দুটি চলচ্চিত্র ‘গলুই’ও ‘বিদ্রোহী’। ঈদুল ফিতরে মুক্তি পাওয়া ছবি দুটির মধ্যে ‘গলুই’ ঈদুল আজহায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেক্ষাগৃহেও মুক্তি পেয়েছে। নিউইয়র্কে থাকা অবস্থায় ‘লিডার: আমিই বাংলাদেশ’ চলচ্চিত্রের ডাবিংও সম্পন্ন করেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.