পদ্মা সেতু বন্যার প্রেক্ষাপটে আশীর্বাদ: প্রধানমন্ত্রী

উজানের ঢল ও ভারী বৃষ্টিপাতে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতির মধ্যেও আগামী ২৫ জুন পদ্মা সেতু উদ্বোধন হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, পদ্মা সেতুটি বন্যার এই প্রেক্ষাপটে সহজ যোগাযোগে জাতির জন্য একটি আশীর্বাদ হবে।

রোববার প্রধানমন্ত্রী তার কার্যালয়ের (পিএমও) শাপলা হলে আন্তর্জাতিক ক্রীড়াক্ষেত্রে দেশের জন্য সুনাম বয়ে আনা ক্রীড়াবিদদের মাঝে সম্মাননার চেক বিতরণকালে এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২৫ জুন পদ্মা সেতু আমরা উদ্বোধন করবো ইনশাআল্লাহ! এই উদ্বোধনের পরে এটাও আল্লাহর একটা আশীর্বাদ হবে। কেননা দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে যোগাযোগটা আমরা অব্যাহত রাখতে পারবো।

দেশে বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে সরকারপ্রধান বলেন, ‘সুনামগঞ্জে পানি নামতে শুরু করেছে। এরপর মধ্যাঞ্চল প্লাবিত হবে। শ্রাবণ-ভাদ্র মাসে দক্ষিণাঞ্চলও প্লাবিত হবে। আমি মনে করি, পদ্মা সেতুর উদ্বোধন হবে আল্লাহর আশীর্বাদ।’ এর ব্যাখ্যায় তিনি বলেন, ‘আমরা তখন দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রাখতে পারব। পণ্য পরিবহনের পাশাপাশি আমরা বন্যা মোকাবিলা করতে পারব। বন্যার সময় মানুষের পাশে দাঁড়ানো, তাদের সহযোগিতা করার সুযোগ পাব।’

১৯৯৮ সালে দেশে ভয়াবহ বন্যার আগে যমুনা নদীতে বঙ্গবন্ধু সেতু উদ্বোধনের প্রেক্ষাপট স্মরণ করিয়ে দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘সেসময় দক্ষিণাঞ্চল প্লাবিত হলে আমরা উত্তরাঞ্চল থেকে সবসময় সহযোগিতা পেয়েছিলাম। বিবিসি, ইউএনডিপি, বিশ্বব্যাংক

বলেছিল বন্যায় না খেতে পেয়ে ২ কোটি মানুষ মারা যাবে। কিন্তু আমরা বলেছিলাম, একটা মানুষকে আমরা না খেয়ে মরতে দেব না। ওই সেতু উদ্বোধনের পর বন্যা মোকাবিলা করতে তা আমাদের অনেক সহযোগিতা করেছিল।’

চলতি বর্ষা মৌসুমে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ হতে পারে, এমন পূর্বাভাস থাকায় সরকার আগে থেকেই প্রস্তুত ছিল বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ত্রাণ সহায়তা ও উদ্ধার কার্যক্রমে সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও বিমান বাহিনীর পাশাপাশি প্রশাসন তৎপর রয়েছে। পাশাপাশি আওয়ামী লীগ ও দলটির অঙ্গসংগঠনকে বন্যার্তদের সহায়তা করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.