মা আমি এই পৃথিবীতে থাকতে পারছিনা, ভালো থেকো

নিহত সামিরা।

বরগুনায় মায়ের কাছে চিঠি লিখে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে সামিরা নামে এক কিশোরী (১৪)। সোমবার(৫ জুলাই) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কলেজ রোডের ভাড়াটিয়া বাসার বাথরুম থেকে তার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়।কিশোরীর আত্মহত্যার জন্য দায়ী উত্যক্তকারী জামাল হোসেনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে।নিহতের মা সুমী বেগম জানিয়েছেন, সামিরা তার

প্রথম স্বামী রফিকের সন্তান।সামিরা ছিলো ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী। সুমী তার বর্তমান স্বামী রাশেদের সাথে সন্তানদের নিয়ে পৌরসভার কলেজ রোডে আবুল বাশারের বাসায় ভাড়া থাকতো। আবুল বাশারের ছেলে জামাল হোসেন স্ত্রী সন্তান থাকা সত্ত্বেও কিশোরী সামিরাকে উত্যক্ত করতো। একাধিকবার সামিরাকে শারিরিক ভাবেও লাঞ্ছিত করেছে।গত কয়েক দিন ধরে সামিরা ও জামালকে

জড়িয়ে প্রতিবেশীরা অনৈতিক সম্পর্কের কথা বলছিলো। রবিবার রাতে সুমী বেগম বাসা মালিক আবুল বাশারকে মোবাইল করে তার ছেলের কূকৃতির কথা জানায়। আবুল বাশার গ্রামের বাড়ি থেকে এসে জামালকে শাসন করবে বলে আশ্বস্ত করেছিল।সামিরা জামালের সাথে তার অনৈতিক সম্পর্কের কথা অস্বীকার করলেও তার মা ছাড়া অন্য কেউ মেনে নিচ্ছিলোনা। মা ছাড়া সবাই সামিরাকে

গালমন্দ করছিলো। আত্মহত্যার আগে সামিরা তার মায়ের কাছে চিঠি লিখে রেখে গেছে।বরগুনা থানার ওসি তারিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, জামালকে তারা জিজ্ঞাসাবাদ করছেন। সামিরার মরদেহ পোস্টমর্টেমের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.