Breaking News

বৈশ্বিক উষ্ণায়নঃ প্রেক্ষিত বাংলাদেশ

প্রফেসর মোহাম্মদ ফখরুল ইসলাম

সারাবিশ্বে তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাপমাত্রা বৃদ্ধির ফলে মাটি, পানি,জলবায়ুসহ প্রকৃতির সবকিছুতে এর প্রভাব দৃশ্যমান। পৃথিবীর মেরুতে জমে থাকা বরফ গলতে শুরু করেছে।ফলে নদী ও সাগরে পানির উচ্চতা বাড়ছে।বৃদ্ধি পাচ্ছে বন্যা ও জলোচ্ছ্বাস। বাংলাদেশের ৫ টি বড় নদীর উৎস ভারতে, বর্ষাকালে পানি বাড়লে ভারত সুইস গেট খুলে দেয়। পানির চাপ সৃষ্টি হয় ভাটির দেশ বাংলাদেশে।যার কারণে পাহাড়ি ঢল আর নদীর পানি একত্রিত হয়ে আমাদের নিম্নভূমিকে প্লাবিত করে।পানি ফুলে ফেঁপে নদীর দুইকূল চাপিয়ে ফসল ও বাড়ীঘরের ব্যাপক ক্ষতি করে। বিশেষভাবে ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট এলাকা ও শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার বাড়িঘরে পানি উঠে জনজীবনকে বিপর্যস্ত করে তোলে।

★ বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির ফলে আমাজন বন বারে বারে পুড়েছে, যে বনকে পৃথিবীর ফুসফুস বলে আখ্যায়িত করা হয়। অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন অঞ্চল মাঝে মাঝে পুড়তে থাকে।আমেরিকার বিভিন্ন বনেও উষ্ণতার কারনে আগুন লাগে।

★ কানাডার বৃটিশ কলাম্বিয়ার লাইটনে গত রোববার (২৭/৬/২১) ৮৪ বছরের মধ্যে, কেউ কেউ বলেন ১০০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ ৪৬.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে।
এতে গত ৫ দিনে প্রায় ৬ শতাধিক মানুষের মৃত্যু ঘটেছে। বয়স্করাই এই প্রকোপের মধ্যে বেশী পড়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের পশ্চিমাঞ্চলেও তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেয়েছে। অথচ কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্রের এই অঞ্চলগুলো শীতপ্রধান অঞ্চল। ক্যালিফোর্নিয়া থেকে কানাডার আর্কটিক অঞ্চল, এমনকি যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যভাগের আইডাহো, ওয়াইয়োসিং রাজ্যেও চরম তাপমাত্রা বিরাজ করছে।
কানাডার আলবার্টার ক্যালগারি শহর ১২৫ বছরের পুরনো তাপমাত্রার রেকর্ড ভঙ্গ করেছে।
বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব হিসেবে অসহনীয় তাপমাত্রা দেখা দিচ্ছে।
কিন্তু জলবায়ুর হঠাৎ পরিবর্তন আশংকার সৃষ্টি করেছে।

★★★ বাংলাদেশে জলবায়ু পরিবর্তন দ্রুত ঘটছে।ফলে তাপমাত্রাও দ্রুত বাড়ছে।
এই বছর দেখানো হয়েছে জলবায়ু পরিবর্তনে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর তালিকায় বাংলাদেশ ” সপ্তম”।
জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বাংলাদেশে বন্যা,জলোচ্ছ্বাস, ঘূর্ণিঝড় বারবার হানা দিচ্ছে। উপকূলীয় অঞ্চল ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে। এর প্রভাব পড়ছে জনস্বাস্থ্যের ওপরও।জলোচ্ছ্বাসের ফলে বাস্তুচ্যুত হবে অনেক মানুষ।

ফসলের ক্ষতি হবে, সুপেয় পানির তীব্র অভাব দেখা দিবে।রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিবে।
★ বিশেষজ্ঞদের অভিমত ঢাকাসহ পাঁচ মহানগরী আগামী এক দশকের মধ্যে বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়বে।ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা ও সিলেট। এটি হবে তাপমাত্রা বৃদ্ধির কারণে। তাপমাত্রা বৃদ্ধির কারণঃ কংক্রিটের বাড়ীঘর, ঘন জনবসতি, বিপুল সংখ্যক পরিবহন, এয়ারকন্ডিশনিং, অপরিকল্পিত নগরায়ন, গাছপালা কাটা, জলাভূমি ভরাট, কারখানার আধিক্য, অসংখ্য লাইটিং।

গ্রামের তুলনায় শহরের তাপমাত্রা বেশী।
★ আন্তর্জাতিক গবেষকরা প্রায় ৮ হাজার স্যাটেলাইট ব্যবহার করে বাংলাদেশে গবেষণা করে দেখেছেন, নগরায়ন বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে বড় শহরগুলোতে তাপমাত্রা বৃদ্ধির এলাকা দ্রুত বাড়ছে।
ফলে ” উষ্ণ নগরদ্বীপ ” বা “আরবান হিট আইল্যান্ড” তৈরী হচ্ছে।
ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকার ৭০ শতাংশ এলাকায়
“উষ্ণ দ্বীপ” তৈরী হচ্ছে। চট্টগ্রামে তা ৬০ শতাংশ।

★ গবেষণায় বলা হয়েছে, নগরাঞ্চলের তাপমাত্রা বৃদ্ধি শুধু বাংলাদেশের সমস্যা নয়,এটি একটি বৈশ্বিক সমস্যা। কারণ আগামী ৩০ বছর অর্থাৎ ২০৫০ সালের মধ্যে বিশ্বের বেশীর ভাগ মানুষ নগরে বসবাস করবে।

গবেষকরা বলেন,” ততদিনে বাংলাদেশও একটি নগররাষ্ট্রে পরিণত হবে। ”
★ ঢাকার তাপমাত্রা সবচেয়ে বেশি বাড়ে।যার ফলে অসহনীয় পরিবেশের সৃষ্টি হয়।অপরিকল্পিত নগরায়নের জন্য গাছপালা, জলাভূমি ভরাট করা হয়। রাজউকের নির্ধারিত প্লানে বাড়ীঘর নির্মাণ না করার কারণে জন দূর্ভোগ বেড়ে যায়।আকস্মিক দূর্ঘটনার সম্মুখীন হতে হয়। যেমনঃ সম্প্রতি মগবাজারের ঘটনা।
তাপমাত্রা বৃদ্ধির আরেকটি বড় কারণ অধিক জনসংখ্যা। মানুষের শরীরের একটা নিজস্ব তাপমাত্রা রয়েছে,যাকে বলা হয় “মেটাবলিক হিটিং”
প্রত্যেক ব্যক্তির ক্ষেত্রে এর পরিমাণ ১০০ ওয়াট।

★★★ তাপমাত্রা বৃদ্ধি রোধে করণীয়ঃ
পরিবেশ বিঞ্জানী ড. আশরাফ দেওয়ান বলেন, তাপমাত্রা বৃদ্ধি রোধে পরিকল্পিত নগরায়ন, পরিবেশিক সুশাসন,সবুজের আচ্ছাদন বৃদ্ধি এবং বাড়িঘর তৈরীর উপাদান সমূহের পরিবর্তন ( ছিদ্রযুক্ত ইট) আনতে হবে।

তাঁর মতে, ঢাকায় মোট সবুজের পরিমাণ মাত্র ২.৪১ শতাংশ। তাই যেসব জায়গায় গরম বেশী, সেখানে গাছপালা লাগাতে হবে।সবার আগে সবুজ পরিবেশ গড়ে তুলতে হবে।
পরিশেষে, তাপমাত্রাকে সহনীয় পর্যায়ে আনার জন্য গবেষণা করে নতুন নতুন উদ্ভাবনী বিষয় অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

★ লেখকঃ শিক্ষাবিদ ও গবেষক
এবং প্রতিষ্ঠাতা, পরিবেশ ক্লাব বাংলাদেশ

Check Also

পা হারানো রাসেলকে ক্ষতিপূরণের বাকি ২০ লাখ টাকা দিল গ্রিনলাইন

রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে গ্রিনলাইন পরিবহনের বাসচাপায় পা হারানো প্রাইভেটকারচালক রাসেল সরকারকে হাইকোর্টের রায়ের পর ক্ষতিপূরণ হিসেবে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *