1. ataurrahmanlabib2017@gmail.com : News Live : News Live
  2. sawontheboss4@gmail.com : Toufiq Hassan : Toufiq Hassan
October 24, 2021, 12:11 pm
শিরোনাম
দুধের শিশুকে কোলে নিয়ে অডিশনে বিচারকদের মন জিতলেন মা, সারেগামাপার মঞ্চে এই প্রথম মাস্ক পরতে বলায় রাগ, ব্যাংক কর্মীকে দিয়ে নগদ ৫.৮ কোটি টাকা গোনালেন কোটিপতি টিভি পর্দায় আলিঙ্গনের দৃশ্য সম্প্রচার নিষিদ্ধ করল পাকিস্তান মৃত্যু হবে দুপুরে, তাই কাফন পরে কবরে বসেছিলেন ১০৯ বছরের বৃদ্ধ! ঢাকাসহ ৬ বিভাগে বৃষ্টির আভাস ইউটিউব দেখে কবিরাজি করতো তিনি, ফোনে নারীদের অশ্লীল ভিডিও ক্ষেত নিড়ানি, কৃষিকাজ-মাছ চাষে ব্যস্ত নব্বই দশকের জনপ্রিয় নায়ক নাঈম অন্তরঙ্গ মুহূর্তে প্রেমিকের জিহ্বা কেটে নিল প্রেমিকা বন্ধুর মেয়ে সারার সঙ্গে প্রেম করছেন অক্ষয়! কবে থেকে বাড়বে ক্লাসের সংখ্যা, বললেন শিক্ষামন্ত্রী

বিশ্ব পরিবেশ দিবস এর তাৎপর্য

রিপোর্টার
  • আপডেট টাইম Saturday, June 5, 2021
  • 73 Time View

প্রফেসর মোহাম্মদ ফখরুল ইসলাম

বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিবস বিশ্ব পরিবেশ দিবস। করোনা নামক মহামারীর দাপট না থাকলে বিশ্বের প্রধানতম সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত হতো পরিবেশ ও জলবায়ু বিপর্যয়। বিষয়টির গুরুত্ব অনুধাবন করে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তার বাজেটে পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তনকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছেন।

প্রতি বছরের মতো এইবারও বাংলাদেশ সারাবিশ্বের সাথে বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালন করবে।উত্তর গোলার্ধে দিবসটি বসন্তে,আর দক্ষিণ গোলার্ধে দিবসটি শরতে পালিত হয়।

★ ইতিহাসঃ ১৯৬৮ সালের ২০ মে জাতিসংঘের অর্থনীতি ও সামাজিক পরিষদের কাছে একটি চিঠি পাঠায় সুইডেন সরকার।চিঠির বিষয়বস্ত ছিল প্রকৃতি ও পরিবেশ দূষণ সম্পর্কিত। সেই বছরই জাতিসংঘের পক্ষ থেকে পরিবেশ রক্ষার বিষয়টি সাধারণ অধিবেশনের আলোচ্যসূচীতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

পরের বছর জাতিসংঘের পক্ষ থেকে পরিবেশ রক্ষার বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা ও সমাধানের উপায় খুঁজতে সদস্য রাষ্ট্রগুলোর সম্মতিতে সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমে ১৯৭২ সালের ৫ জুন থেকে ১৬ জুন জাতিসংঘ মানব পরিবেশ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সম্মেলনটি ইতিহাসের প্রথম পরিবেশ বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের স্বীকৃতি পায়।
১৯৭৩ সালে সম্মেলনের প্রথম দিন ৫ জুনকে জাতিসংঘ ” বিশ্ব পরিবেশ দিবস ” হিসেবে ঘোষণা দেয়।
১৯৭৪ সাল থেকে প্রতিবছর দিবসটি বিশ্বব্যাপী পালিত হয়ে আসছে।
প্রায় ১৫৩ টি দেশ এই দিবস পালন করে।

★★ কেন এই দিবস!!!
পরিবেশ রক্ষার জন্য সচেতনতা, বিশ্বের সবুজায়ন ও প্রকৃতির গুরুত্ব বুঝাতে এই দিবসটি পালন করা হয়।
আবার সম্মুখীন কোন পরিবেশগত সমস্যা সমাধানের বিষয়কে প্রতিপাদ্য করেও দিবসটি পালন করা হয়।

★★★ ২০২১ সালের বিশ্ব পরিবেশ দিবস এর থীমঃ
এই বছরের থীম ” বাস্ততন্ত্রের পুনরুদ্ধার করা ” ( Ecosystem Restoration “)
@@ প্রথম কোথায় পালিত হয়?ঃ আমেরিকায় প্রথম বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালিত হয়। যার থীম ছিল ঃ ” অনলি ওয়ান আর্থ ” ।
@@ ২০২১ সালের আয়োজক দেশঃ ২০২১ সালের আয়োজক দেশ হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছে পাকিস্তানকে।

@@@ তাৎপর্যঃ প্রাণ ও জীবনীশক্তির ধারক ও বাহক হলো পরিবেশ।
জনসংখ্যা বৃদ্ধি, বায়ুদূষণ, পানিদূষণ,মাটিদূষণ,শব্দদূষণ, সামুদ্রিক দূষণ,নদী দূষণ,কলকারখানার দূষণ,বন্যপ্রাণীর মতো পরিবেশগত বিষয়, বৈশ্বিক উষ্ণতা ইত্যাদি বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির স্বার্থে এই দিবস পালিত হচ্ছে।

প্রকৃতি আমাদের জীবনে কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা হয়তো আমরা অনেকেই জানতাম না, করোনা নামক মহামারী তা আমাদেরকে বুঝিয়ে দিয়েছে।
@ অপরিকল্পিত নগরায়ন, প্রাকৃতিক সম্পদের অপব্যবহার,শিল্প কারখানার বর্জ্য, জনসংখ্যা বৃদ্ধি, নির্বিচারে বৃক্ষ নিধন,গাড়ীর বিষাক্ত ধোঁয়া, ওজোন স্তরের ক্ষয়,অপরিকল্পিত গৃহ নির্মাণ, প্লাস্টিক ও পলিথিনের ব্যবহার, প্রসাধনী সামগ্রী,মেডিকেল বর্জ্য ইত্যাদি পরিবেশ দূষণের জন্য দায়ী। এই বিষয় গুলোর সুষ্ঠু সমাধান ও বৈজ্ঞানিক উপায়ে পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে।তাহলে দিবসটি পালনের স্বার্থকতা আমাদের নিকট পরিস্ফুট হবে।

@@ আমাদের অর্থনৈতিক উন্নতি হয়েছে কিন্ত পরিবেশগত ক্ষয়ক্ষতিও বেড়েছে।
বিশ্বে প্রতিবছরে ২২ কোটি টন কার্বন মনোক্সাইড সঞ্চিত হচ্ছে।
বায়ুমন্ডলে কার্বন ডাই-অক্সাইড, সালফার ডাই- অক্সাইড,নাইট্রাস অক্সাইড গ্যাস আনুপাতিক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে।
পরিবেশের বিপর্যয়ের কারণেঃ

প্রতি মিনিটে ২১ হেক্টর কৃষিজমি বন্ধ্যা হয়ে যাচ্ছে।
প্রতিবছর ৭৫ লাখ হেক্টর জমি মরুভূমি হয়ে যাচ্ছে।
প্রতি মিনিটে ৫০ হেক্টর জমি বালুকাকীর্ণ হয়ে যাচ্ছে।

গাছ ও বনজঙ্গল কমে যাওয়ার কারণে প্রতিবছর বিপুল পরিমাণ অক্সিজেন কমে যাচ্ছে।
ভোলা জেলা শাখার পরিবেশ বন্ধুদের মতে,একদিন হয়তো পানির বোতলের মতো অক্সিজেনের বোতল কিনতে হবে।
শস্য রক্ষার জন্য কীটনাশক ব্যবহারের ফলে মানুষের শরীরে নানা রকম রোগ বাসা বাঁধছে।
পরিবেশ দূষণের কারণে পৃথিবীতে ৮০ শতাংশ নিত্যনতুন রোগের সৃষ্টি হচ্ছে।

পরিবেশ দূষণের ফলে মেরু অঞ্চলের বরফ গলে পানিতে পরিণত হচ্ছে। ওজোন স্তর কমে যাচ্ছে।
নদী দূষণের ফলে মাছের সংখ্যা দিনদিন কমে যাচ্ছে।
বিশ্বব্যাংকের প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দূষণ ও পরিবেশগত ঝুঁকির কারণে যেসব দেশ সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত তার একটি বাংলাদেশ।
বাংলাদেশের ২৮ শতাংশই মারা যায় পরিবেশ দূষণ জনিত রোগব্যাধির কারণে।সারা বিশ্বে মারা যায় ১৬ শতাংশ।
অপরদিকে বৈশ্বিক উষ্ণায়ণে বাড়ছে মৃত্যু।

গ্রীষ্মের উত্তাপজনিত প্রাণহানির এক- তৃতীয়াংশের বেশী জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ঘটে থাকে।
আন্তর্জাতিক গবেষকদল সতর্ক করে বলেছেন বৈশ্বিক তাপমাত্রা আরও বাড়লে প্রাণহানি আরও বেশী ঘটতে পারে।
গবেষকরা বলেন,তারা যে পদ্ধতিতে গবেষণা করছেন,তা যদি বিশ্বব্যাপী বর্ধিত করা যায় তবে দেখা যাবে,মানবসৃষ্ট জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে প্রতিবছর প্রায় এক লাখের বেশী মানুষের তাপজনিত মৃত্যু সংঘটিত হবে।

ইয়াসের ফলে আমাদের উপকূলীয় অঞ্চলর মানুষ পরিবেশগত সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে।
সর্বোপরি আমাদেরকে এখনই পরিবেশগত বিপর্যয়ের বিষয়ে সচেতন হতে হবে, না হয় এরজন্য চরমমূল্য দিতে হবে।

@@@ পরিবেশ ক্লাব বাংলাদেশঃ পরিবেশ ক্লাব বাংলাদেশ শিক্ষার্থীদের মাঝে পরিবেশ, বন,বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির কাজ করে যাচ্ছে। তারা নিজেরা এইসব বিষয়ে সচেতন হচ্ছে এবং সহপাঠী ও বন্ধুদেরকেও সচেতন করছে।
তাদের উদ্দেশ্য দূষণমুক্ত, নির্মল ও বাসযোগ্য বাংলাদেশ নির্মাণ।

পরিশেষে, আসুন সবাই পরিবেশ ক্লাব বাংলাদেশ এর সাথে একাত্বতা ঘোষণা করে প্রিয় মাতৃভূমিতে বাসযোগ্য পরিবেশ সৃষ্টি করি।

লেখকঃ শিক্ষাবিদ ও গবেষক
এবং প্রতিষ্ঠাতা ও চীফ মেন্টর
পরিবেশ ক্লাব বাংলাদেশ

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এছাড়া আরো সংবাদ
2020সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | নিউজলাইভ 24.কম সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন
উন্নয়নেঃ সাইট পুল