Breaking News

পশ্চিমবঙ্গে বুথফেরত জরিপে এগিয়ে মমতার তৃণমূল কংগ্রেস

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও আসামসহ পাঁচটি রাজ্যে বিধানসভার নির্বাচন শেষ হয়েছে। এখন অপেক্ষা ফলাফলের।

বুথফেরত জরিপে দেখা যাচ্ছে, পশ্চিমবঙ্গে আবারও ক্ষমতায় আসছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেস। তামিলনাড়ু, পদুচেরি ও কেরালাতেও জয় পেতে পারে আঞ্চলিক দলগুলো। তবে এনডিটিভির জরিপে দেখা গেছে, আসামে এগিয়ে রয়েছে কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন দল বিজেপি। আগামী ২ মে ফলাফল ঘোষণা করা হবে।

ভারতের ৫ রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনের পর বুথফেরত জরিপের ফলাফল নিয়ে চলছে তুমুল আলোচনা। ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমগুলোতে পশ্চিমবঙ্গের আট পর্বের বিধানসভা নির্বাচন শেষে বুথ ফেরত জরিপের ফল প্রকাশ হতে শুরু করেছে।

পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভায় মোট আসন সংখ্যা ২৯৪টি। প্রার্থীর মৃত্যুতে দুটি আসনে ভোট না হওয়ায় কোনো দল ১৪৮ আসন জিতলেই সরকার গঠন করতে পারবে।

আনন্দবাজারের এপিবি-আনন্দের বুথফেরত জরিপ বলছে, ৪২ শতাংশ ভোট নিয়ে ১৫২ থেকে ১৬৪টি আসন পেতে যাচ্ছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেস। কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজেপি পেতে পারে ১০৯ থেকে ১২১টি আসন। এছাড়া বাম-কংগ্রেস জোট পেতে পারে মাত্র ১৪ থেকে ২৫টি আসন।

টাইমস নাউয়ের জরিপ বলছে, ১৫৮টি আসন নিয়ে জয়ের পথে মমতা। বিজেপি জিততে যাচ্ছে ১১৫ আসনে। আর বাম-কংগ্রেস জোট পাচ্ছে ১৯ আসন।

এছাড়া এনডিটিভি, এবিপি-সিএনএক্স এর বুথফেরত জরিপেও আভাস মিলেছে রাজ্যে সরকার গড়বে তৃণমূল। তবে ইন্ডিয়া টুডে- অ্যাক্সিস ইন্ডিয়ার জরিপে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস মিলেছে।

এদিকে, এনডিটিভির জরিপে বলছে, দক্ষিণের রাজ্য তামিলনাড়ুর বিধানসভায় ২৩৪ আসনের মধ্যে আঞ্চলিক দল ডিএমকের নেতৃত্বাধীন জোট ১৬৫টি আসনে জয় পেতে পারে। পরাজয় ঘটতে পারে রাজ্যে ক্ষমতাসীন এআইএডিএমকে সরকারের। এ দলের সঙ্গে জোট বেঁধে এবারের নির্বাচনে লড়েছে বিজেপি।

কেরালায় এবারও বামপন্থী এলডিএফ ফ্রন্টের জয়ের সম্ভাবনা দেখা গেছে। জরিপ বলছে, ১৪০ আসনে এলডিএফ জয় পেতে পারে ৮৫টি আসনে।

ইউনিয়ন টেরিটোরি পদুচেরির বিধানসভায়ও আঞ্চলিক জোট অল ইন্ডিয়া এনআর কংগ্রেস ২১টি আসনে জয় পেতে পারে। ভরাডুবি হতে পারে কংগ্রেস জোটের।

এনডিটিভির জরিপ অনুযায়ী, শুধু আসামেই এগিয়ে বিজেপি সরকার। ১২৬ আসনের মধ্যে বিজেপি পেতে পারে ৭২টি আসন। অন্যদিকে কংগ্রেস জিততে পারে ৫৩টি আসনে।

Check Also

আফগানিস্তানে বুশ মার্কেটের নাম এখন মুজাহিদিন বাজার

আফগানিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমাদের চলে যাওয়ার পর দেশের বিভিন্ন স্থাপনার নাম বদলে ফেলছে তালেবান …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *