ইসলামের দৃষ্টিতে শুধু ‘কবুল’ বললেই কি বিয়ে হয়ে যাবে?

ডেস্ক রিপোর্ট : বিয়ে সম্পাদন হওয়ার জন্য ইজাব-কবুল জরুরি। কেননা ছেলে-মেয়ের প্রস্তাব (ইজাব) এবং গ্রহণের (কবুলের) মাধ্যমেই বিয়ে সম্পাদন হবে। কিন্তু যদি কোনো ছেলে কোনো মেয়েকে উদ্দেশ্য করে বলে- ‘‌আমি তোমাকে বিয়ে করলাম বা বিয়ে করার প্রস্তাব দিচ্ছি’ আর মেয়ে যদি এ প্রস্তাবের জবাবে বলে ‘কবুল বা গ্রহণ করলাম’ তবে কি এ বিয়ে সম্পাদন হয়ে যাবে?

সমাজে এভাবে অহরহ বিয়ের ঘটনা ঘটছে। এসব বিয়ে সম্পর্কে তারা বলেন যে, আমরা ইজাব-কবুলের মাধ্যমেই বিয়ে সম্পাদন করেছি। কিন্তু ছেলেমেয়ের ইজাব-কবুলের মাধ্যমে বিয়ে বৈধ হওয়ার জন্য শর্ত রয়েছে। শর্তগুলো যথাযথভাবে পালন সাপেক্ষে বিয়ে সম্পাদন হবে।

[১] মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে সেনা ও নৌবাহিনীতে অনারারী কমিশন প্রদান ≣ [১] বার কাউন্সিলের নির্বাচন স্থগিত ≣ [১] চৌগাছায় পরকীয় প্রেমিকের সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে স্বামীর বকুনিতে গৃহবধূর আত্মহত্যা!
১. ছেলে-মেয়েকে প্রাপ্ত বয়স্ক, বুদ্ধি-জ্ঞানসম্পন্ন মুসলমান হতে হবে।

২. ছেলে মেয়ে নিজ সম্মতিতে ‘ইজাব-কবুল’ বলবে এবং উভয়ে পরস্পর নিজ নিজ কানে শুনতে হবে। অভিভাবক কিংবা প্রতিনিধির মাধ্যমে বিয়ে অনুষ্ঠিত হলে অভিভাবকরা একের ছেলের প্রস্তাব পয়গাম মেয়েকে বলবে, মেয়ের ‘কবুল’ বলার শব্দ প্রতিনিধিদের নিজ কানে শুনতে হবে।

৩. বিয়ের ‘ইজাব-কবুল’ শোনার জন্য দুজন প্রাপ্তবয়স্ক, জ্ঞানবান সাক্ষী কিংবা একজন পুরুষ ও দুজন জ্ঞানবান, প্রাপ্তবয়স্ক নারী বিয়ের মজলিসে নিজ কানে শুনতে হবে। (দৈনন্দিন জীবনে ইসলাম)

সুতরাং কোনো ছেলে যদি কোনো মেয়েকে সরাসরি প্রস্তাব দেয়, ‘আমি তোমাকে বিয়ে করছি বা বিয়ের প্রস্তাব করছি। আর মেয়ে প্রস্তাবের বিপরীতে ‘কবুল বা আলহামদুলিল্লাহ’ বলে তবে উল্লেখিত শর্ত পূরণ সাপেক্ষে বিয়ে সম্পাদন হবে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহর সব ছেলে মেয়েকে উল্লেখিত শর্ত সম্পাদন সাপেক্ষে বিয়ে সম্পন্ন করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.