Breaking News

ব্যথায় যেসব দোয়ার আমল করতে বলেছেন বিশ্বনবি

যে কোনো সময় যে কারও শরীরে ব্যথা হতে পারে। এসব ব্যথা ও যন্ত্রণায় সুন্নাতি আমল, দোয়া ও ঝাড়-ফুকের দিকনির্দেশনা এসেছে হাদিসে। সাহাবায়ে কেরামের কারও ব্যথা হলেই তারা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে সুন্নাতি আমল গ্রহণ করতেন এবং দোয়া পড়তেন। হাদিসের একাধিক বর্ণনায় তা ওঠে এসেছে-

> হজরত উসমান বিন আবুল আস আস-সাকাফি রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, আমি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে মারাত্মক ব্যথা নিয়ে উপস্থিত হলাম। যে ব্যথা আমাকে প্রায় অকেজো করে ফেলেছিল। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাকে বললেন-
‘তুমি তোমার ডান হাত ব্যথার স্থানে রাখ এবং ৩ বার- بِسْمِ اللَّهِ বিসমিল্লাহ বল আর ৭ বার এ দোয়া পড়-
أَعُوذُ بِعِزَّةِ اللَّهِ وَقُدْرَتِهِ مِنْ شَرِّ مَا أَجِدُ وَأُحَاذِرُ
উচ্চারণ : বিসমিল্লাহি আউজু বিইজ্জাতিল্লাহি ওয়া কুদরাতিহি মিন শাররি মা আঝিদু ওয়া উহাজিরু।
অর্থ : আল্লাহর নামে আমি আল্লাহর অসীম সম্মান ও তাঁর বিশাল ক্ষমতার ওসিলায় আমার অনুভূত এই ব্যথার ক্ষতি থেকে আশ্রয় প্রার্থনা করি।’ (ইবনে মাজাহ)

– হজরত উসমান ইবনু আবুল আস আস-সাকাফি রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে অন্য বর্ণনায় এসেছে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমার কাছে এলেন। আমি তখন ধ্বংসাত্মক ব্যথার কারণে অস্থির ছিলাম। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন-
‘ব্যথার জায়গাতে তোমার ডানহাত দিয়ে ৭ বার মর্দন কর আর এ দোয়া পড়-
بِسْمِ اللَّهِ أَعُوذُ بِعِزَّةِ اللَّهِ وَقُدْرَتِهِ مِنْ شَرِّ مَا أَجِدُ وَأُحَاذِرُ
উচ্চারণ : ‘বিসমিল্লাহি আউজু বিইজ্জাতিল্লাহি ওয়া কুদরাতিহি মিন শাররি মা আঝিদু।’
অর্থ : ‘আল্লাহর নামে আমি আল্লাহ তাআলার ইজ্জাত ও সম্মান, তাঁর কুদরাত ও শক্তি এবং তাঁর রাজত্ব, সার্বভৌমত্ব ও কর্তৃত্বের কাছে আমার এই কষ্ট হতে মুক্তি প্রার্থনা করছি।’

বর্ণনাকারী বলেন, আমি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নির্দেশনা অনুযায়ী ডান হাত দিয়ে ব্যথার স্থানে মর্দন করছিলাম আর ৭ বার এ দোয়া পড়লাম। তাতে আল্লাহ তাআলা আমার পুরো ব্যথাই নিরাময় করে দিলেন। আমি এর পর থেকে আমার পরিবারের লোকদের এবং অন্যান্যদেরও এ নিয়মে আমল করার জন্য বলে আসছি।’ (তিরমিজি, ইবনে মাজাহ, মুসলিম, আবু দাউদ, মুসনাদে আহমাদ)

ব্যথায় ঝাড়-ফুঁক
– হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম (ব্যথার স্থানে) ঝাড়-ফুঁক করতেন। আর এ দোয়া পড়তেন-
اَمْسَحْ الْبَاسَ رَبَّ النَّاسِ بِيَدِكَ الشِّفَاءُ لاَ كَاشِفَ لَه“إِلاَّ أَنْتَ
উচ্চারণ : ‘‌আমসাহ আল-বাসা রাব্বান নাসি; বিয়াদিকাশশিফাউ লা কাশিফা লাহু ইল্লা আংতা।’
অর্থ : ‘ হে মানুষের পালনকর্তা! ব্যথা দূর করে দাও। আরোগ্য দানের ক্ষমতা শুধু তোমারই হাতে। এ ব্যথা তুমি ছাড়া আর কেউ দূর করতে পারে না।’ (বুখারি)

– হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বর্ণনা করেন, কোনো ব্যক্তি যদি তার শরীরের কোনো অঙ্গে ব্যথা অনুভব করতো অথবা শরীরের কোনো স্থানে ফোড়া দেখা দিতো বা জখম হতো তখন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম (ব্যথার স্থানে) আঙ্গুল বুলাতেন আর বলতেন-
بِسْمِ اللهِ تُرْبَةُ اَرْضِنَا بِرِيْقَةِ بَعْضِنَا لِيُشْفَىْ بِهِ سَقِيْمُنَا بِاِذْنِ رَبِّنَا
উচ্চারণ : ‘বিসমিল্লাহি তুরবাতু আরদিনা বিরিকাতি বাদিনা লি-ইউশফা সাক্বিমুনা বি-ইজনি রাব্বিনা।’
অর্থ : ‘আল্লাহর নামে আমাদের জমিনের মাটি এবং আমাদের কারো থুথুর সংমিশ্রণে আমাদের রবের নির্দেশে আমাদের অসুস্থ ব্যক্তিকে আরোগ্য দান কর।’ (বুখারি ও মুসলিম)

সুতরাং কারও শরীরে ব্যথা অনুভূত হলে হাদিসের দিকনির্দেশনা অনুযায়ী আমল করা ও নিয়ম অনুযায়ী ঝাড়-ফুঁক করা সুন্নাত। এতে একাধিক সুবিধা পাওয়ার সুযোগ রয়েছে। একদিকে হাদিসের ওপর আমল করার সাওয়াব। অন্যদিকে হাদিসের আমল করার কারণে ব্যথা থেকেও মুক্ত থাকা সম্ভব।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে যে কোনো ব্যথা নিরাময়ে হাদিসের নির্দেশনা মেনে আমল করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Check Also

ধর্ম যার যার উৎসবও তার তার : সুজানা জাফর

একসময়ের জনপ্রিয় মডেল-অভিনেত্রী সুজানা জাফর তার ভেরিফাইড ফেসবুকে লিখেছেন, অন্য ধর্মের অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা জানানো, অংশগ্রহণ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *