কাবা শরিফ ও মদিনায় জুমআ পড়াবেন শায়খ মুয়াইকিলি ও আল-কাসিম

পবিত্র মসজিদে জুমআর খুতবাহ প্রদান এবং জুমআর জন্য ২ জন প্রবীণ খতিব নির্ধারণ করেছেন। তারা হলেন-
> কাবা শরিফ
প্রখ্যাত ইসলামিক স্কলার, প্রবীণ ইমাম ও খতিব শায়খ ড. মাহের বিন হামাদ বিন মুয়াক্বল আল-মুয়াইকিলি।
> মসজিদে নববি
বিশিষ্ট ইসলামিক স্কলার, প্রবীণ ইমাম ও খতিব শায়খ ড. আব্দুল মুহসিন আল-কাসিম।

ব্যাপক নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনেই কাবা শরিফ ও মদিনার মসজিদে নববিতে চালু আছে জুমআ। আজও মুসল্লিরা প্রতিটি পর্যায়ে সুনির্দিষ্ট দিকনিদের্শনা ও সর্বোচ্চ স্বাস্থ্য সতর্কতা মেনে মহামারি করোনার দ্বিতীয় ধাপের প্রাদুর্ভাবের মাঝেও নামাজ এবং খুতবায় অংশগ্রহণ করবেন।

এদিকে মুসল্লিদের ভিড় কমাতে এবং নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে নামাজ পড়া ও স্বাস্থ্যবিধি মানার সুবিধার্থে মসজিদে নববির ছাদ খুলে দেয়া হয়েছে। সেখানে প্রায় ১০ হাজার মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারবে।

সৌদি আরবের সব মসজিদে নামাজ পড়ার সময় ও দিকনির্দেশনা জারি করা হয়েছে। দেশটির ইসলামিক দাওয়াহ ও দিকনির্দেশনা মন্ত্রণালয় গত ২ সপ্তাহ আগে নতুন এই নির্দেশনা জারি করে। তাতে জানানো হয়-
– মসজিদে আজান দেয়ার ১০ মিনিটের মধ্যে জামাআত শুরু করতে হবে।
– আজান ও জামাআতের মধ্যে ১০ মিনিটের বেশি বিরতি না দেয়া। তবে ফজরের নামাজের জন্য আজান ও জামাআতের মধ্যবর্তী সময়ের বিরতি হবে ২০ মিনিট।
– সরকারি নির্দেশনায় আরও বলা হয়েছে- মসজিদসমূহ আজানের পর খোলা হবে এবং নামাজের ১০ মিনিট পর বন্ধ করে দেয়া হয়।

জুমআর ক্ষেত্রে-
– জুমআর নামাজের ক্ষেত্রে জামে মসজিদগুলো আজানের ৩০ মিনিট আগে খোলা হবে। আর নামাজের ১০ মিনিট পর বন্ধ করে দেয়া হবে।
– আগের মতো জুমআর খুতবাহ ও জামাআত ১৫ মিনিটের বেশি হতে পারবে না। এ মর্মে সব খতিবকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, কারোনাকালীন দুর্যোগের মধ্যে মক্কা-মদিনায় রমজান মাসের যাবতীয় পরিকল্পনা নিয়ে দুই পবিত্র মসজিদের ইমামগণ শায়খ ড. আব্দুর রহমান সুদাইসির নেতৃত্বে ইতিমধ্যে পরামর্শ সভা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.