1. ataurrahmanlabib2017@gmail.com : News Live : News Live
  2. sawontheboss4@gmail.com : Toufiq Hassan : Toufiq Hassan
October 24, 2021, 6:19 pm
শিরোনাম
দুধের শিশুকে কোলে নিয়ে অডিশনে বিচারকদের মন জিতলেন মা, সারেগামাপার মঞ্চে এই প্রথম মাস্ক পরতে বলায় রাগ, ব্যাংক কর্মীকে দিয়ে নগদ ৫.৮ কোটি টাকা গোনালেন কোটিপতি টিভি পর্দায় আলিঙ্গনের দৃশ্য সম্প্রচার নিষিদ্ধ করল পাকিস্তান মৃত্যু হবে দুপুরে, তাই কাফন পরে কবরে বসেছিলেন ১০৯ বছরের বৃদ্ধ! ঢাকাসহ ৬ বিভাগে বৃষ্টির আভাস ইউটিউব দেখে কবিরাজি করতো তিনি, ফোনে নারীদের অশ্লীল ভিডিও ক্ষেত নিড়ানি, কৃষিকাজ-মাছ চাষে ব্যস্ত নব্বই দশকের জনপ্রিয় নায়ক নাঈম অন্তরঙ্গ মুহূর্তে প্রেমিকের জিহ্বা কেটে নিল প্রেমিকা বন্ধুর মেয়ে সারার সঙ্গে প্রেম করছেন অক্ষয়! কবে থেকে বাড়বে ক্লাসের সংখ্যা, বললেন শিক্ষামন্ত্রী

মুদি দোকানির এক মাসের বিদ্যুৎ বিল ৯ লাখ ২৪ হাজার টাকা!

রিপোর্টার
  • আপডেট টাইম Monday, March 15, 2021
  • 25 Time View

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে হেলাল উদ্দিন নামের এক মুদি দোকানির এক মাসে ৯ লাখ ২৪ হাজার ৩২৭ টাকার বিদ্যুৎ বিল এসেছে। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়েছে। হেলালের মতো আর অনেকেরই ‘ভুতুড়ে’ বিদ্যুৎ বিল করেছে গৌরীপুর বিদ্যুৎ বিভাগ। এ ঘটনার প্রতিবাদে শুক্রবার বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন ভুক্তভোগীরা। সরেজমিনে শুক্রবার সকালে এ প্রতিবেদক উপজলোর কোনাপাড়া গ্রামের আলাল উদ্দিনের ছেলে মো. হেলাল উদ্দিনের বাড়িতে যান।এ সময় হেলাল জানান, পেশায় তিনি একজন মুদি

দোকানি। তার ২০২০ সালের নভেম্বর মাসে বিদ্যুৎ বিল এসেছে ৯ লাখ ২৪ হাজার ৩২৭ টাকা। তিনি আরও জানান, অক্টোবর মাসেও বিদ্যুৎ বিল এসেছে ৮ হাজার ১১৪টাকা, ইউনিট ছিল ১২ হাজার ৯৬০। এক মাস পর নভেম্বর মাসে হঠাৎ করে মিটারে রিডিং ৯৩ হাজার ৮১৪ ইউনিট উঠে যায়। ভুক্তভোগী হেলাল বলেন, বিষয়টি নিয়ে বিদ্যুৎ বিভাগে আবেদন করেও আমি প্রতিকার পাচ্ছি না। মিটারের এ রিডিংয়ের বিপরীতে বিদ্যুৎ বিভাগ ৯ হাজার ২৪ হাজার ৩২৭ টাকার বিদ্যুৎ বিল করে দিয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সাবেক চেয়ারম্যান মো. হযরত আলী যুগান্তরকে জানান, হেলালের সাড়ে ৭ শতাংশের বাড়িভিটে আর কদমতলী বাজারের তিনটি দোকান বিক্রি করে দিলেও এ বিল দেওয়ার সামর্থ্য নেই। অভাবের কারণে হেলালের এক ছেলের লেখাপড়া বন্ধ, সে এখন রাজমিস্ত্রির সহযোগী হিসাবে কাজ করছে। এক মেয়ে স্থানীয় ইসলামাবাদ সিনিয়র মাদরাসায় পড়ে আর ছোট ছেলে রিফাত মিয়া কোনাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম শ্রেণিতে পড়ছে। তিনি আরও বলেন, অতিরিক্ত

বিদ্যুৎ বিলের জন্য অফিসে দৌড়ঝাঁপ করতে গিয়ে তিন বেলার খাবারও জুটছে না হেলালের।হেলালের স্ত্রী নারগিস আক্তার জানান, বিদ্যুৎ বিলের চিন্তায় তার স্বামী রাতে ঘুমাতেও পারছেন না। দুশ্চিন্তায় শারীরিক সমস্যাও দেখা দিয়েছে। একই রকম অভিযোগ পাওয়া যায় পৌর শহরের গোলকপুর গ্রামে। এ গ্রামের মুদি দোকানি শিরিনা আক্তারেরও এক মাসের বিদ্যুৎ বিল ৭৫ হাজার টাকা এসেছে। তিনি জানান, বিদ্যুৎ বিভাগের এ অ’ত্যা’চার থেকে বাঁচতে বিভিন্ন স্থানে বিচার প্রার্থী হয়েছি, ঘুরেছি,

কেউ সহযোগিতা করেনি। এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করেছি। ‘ভুতুড়ে’ বিল প্রসঙ্গে আবাসিক প্রকৌশলী বিদ্যুৎ নিরঞ্জন কুন্ড বলেন, গ্রাহকের আবেদনের প্রেক্ষিতে মিটার পরীক্ষা করা হয়েছে। মিটার সঠিক থাকায় বিল করে দেওয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এছাড়া আরো সংবাদ
2020সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | নিউজলাইভ 24.কম সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন
উন্নয়নেঃ সাইট পুল