বিয়ে নাকি নেশা, ৩৪ বছর বয়সে ১১ বিয়ে হামিদার;

প্রায় ডজন খানিক বি’য়ে করে কো’টি টা’কা হাতিয়ে নেওয়া’র অ’ভি’যো’গ উঠেছে ৩৪ ব’ছর বয়সী হামিদা বেগমে’র বি’রু’দ্ধে। একে একে ১১টি বি’য়ে কর’লেও তিন-চারটি ছাড়া অধিকাংশ ‘স্বামীর সঙ্গেই কোনো প্রকার বি’য়ে বিচ্ছেদ হয়নি

হামিদা’র। ব্রা’হ্মণবাড়িয়া’র সরাইল উ’পজে’লা’র কালীকচ্ছ ইউনিয়নের ক’লেজপাড়া এলাকায়’ হামিদার পৈ’তৃক বাড়ি। বাবা মৃ”ত বালু মিয়া, মা মৃত আবেদা খাতুন। হা’মিদার বাবা ছিলে’ন একজন চা দো’কানি।পারিবারিকভাবে হা’মিদার প্রথম বি”য়ে হয়

সরাইল সদরের বড্ডা’পাড়া গ্রামের প্র’বাসী আলমগীর মি’য়ার সঙ্গে। অ’নুমান ১০ বছর সংসার করার পর হামি’দা কা’লীকচ্ছ এলাকার ব্যবসায়ী ই’ব্রাহিম নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে প’র’কী’য়া’য় জড়িয়ে প্রবা’সী আলমগীরকে তা’লা’ক দেয় এবং

দেনমোহর ও অন্যান্য পাওনা বাবদ প্রায় নয় ল’ক্ষ টাকা হাতি’য়ে নেয় হামিদা। প’রবর্তীতে ইব্রাহি’মের সঙ্গে সং’সার শুরু করে হামিদা।মাত্র এ’কব’ছরে কৌশলে হামিদা নিজ পিত্রালয়ে নতুন ঘর নি’র্মাণসহ বিভিন্ন কাজের অ’জুহাতে ১০ ল’ক্ষ

টা’কার বেশি ই’ব্রাহিমের কাছ থেকে হাতিয়ে নেয়।এরই মধ্যে কা’লীকচ্ছ এলাকার বাপ্পীনামে এক ব্যবসায়ীর সঙ্গে প’র’কী’য়া সম্পর্ক গড়ে তোলেন হা’মিদা। এরকিছু দিন পর দুর্ঘটনায় ই’ব্রা’হিম পা ভেঙে অ’সু’স্থ হয়ে পড়লে, তাকে’ ছেড়ে

হা’মিদা বেগম বাপ্পীর সঙ্গে নতু’নভাবে সং’সার শু’রু করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.