বাটসুয়াইয়ের গোলে বেলজিয়ামের জয়

গত বিশ্বকাপের তৃতীয় স্থান অর্জন করা দল বেলজিয়াম। এবারের কাতার বিশ্বকাপেও হট ফেভারিট তারা।অন্যদিকে বিশ্বকাপের মঞ্চে প্রায় ৩৬ বছর পর জায়গা পেয়েছে কানাডা। বুধবার দিবাগত রাতে (বৃহস্পতিবার ২৪ নভেম্বর) দোহার আহমেদ বিন আলী স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয়েছে এই দুই দল। ম্যাচে পার্থক্য গড়ে দিয়েছেন মিচি বাটসুয়াইয়। তার এক গোলেই জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে বেলজিয়াম।

ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমনাত্মক ফুটবলের পসরা সাজিয়ে বসে বেলজিয়াম। তবে গোলের দেখা মিলছিল না তাদের। উল্টো ম্যাচের ৯ মিনিটে পেনাল্টি পেয়েও মিস করেছে কানাডা। কানাডার আলফানসো ডেভিসের দূর্বল শট রুখে দেন কর্তোয়া। তবে প্রথমার্ধের শেষ সময়ে (৪৪ মিনিট) অল্ডারউয়েরেল্ডের বাড়ানো বলে বাটসুয়াইর অন টাচ শট পায় জালের ঠিকানা। ১-০ গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় বেলজিয়াম।

দ্বিতীয়ার্ধে আক্রমনের ধার বাড়ায় দুই দলই। আক্রমণ-প্রতিআক্রমণে ম্যাচ জমে উঠলেও গোলের দেখা মেলেনি কোনও দলেরই। ৪৯ মিনিটে ডেভিডের হেড একটুর জন্য গোলবারের বাইরে চলে যায়। ৬৯ মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছিল বেলজিয়াম। ডিবক্সের ভেতর বাতশুয়াইর শট ব্লক করে দেন লারিয়া।

ম্যাচের ৮১ মিনিটে গোলের আবারো সুযোগ পেয়েছিল কানাডা। কিন্তু ডেভিডের কিরা হেড দুর্দান্তভাবে ঝাপিয়ে রুখে দেন কুর্তোয়া। ম্যাচে ৩২ টা গোলের চেষ্টা করেও গোল করতে ব্যর্থ হয় কানাডা।অন্যদিকে মাত্র ৯ টা শট নিতে পারে বেলজিয়াম। কষ্টার্জিত এই জয়ে গ্রুপের শীর্ষে উঠে আসলো বেলজিয়াম।

তারকাবহুল বেলজিয়ামের বিপক্ষে কানাডার খেলার খুব বেশি খেলার রেকর্ড নেই। এর আগে একবারই মুখোমুখি হয়েছিল তারা। তাও ৩৩ বছর আগে, ১৯৮৯ সালে। প্রীতি ম্যাচের সেই দেখায় ২-০ গোলে জিতেছিল বেলজিয়াম। দ্বিতীয় দেখায়ও জয়ের ধারা বজায় রাখলো বেলজিয়াম।