পারিবারিক কলহে তিন সন্তানের জননীর আত্মহত্যা

পাবনার ঈশ্বরদীতে পারিবারিক কলহের জেরে বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন মুর্শিদা খাতুন (৪০) নামে এক গৃহবধূ।মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তার মৃত্যু হয়।এর আগে দুপুরে উপজেলার দাশুড়িয়া ইউনিয়নের বাড়াহুশিয়া-দরগাবাজার এলাকায় ওই গৃহবধূ বিষপান করেন।

নিহত মুর্শিদা খাতুন উপজেলার দাশুড়িয়া ইউনিয়নের বাড়াহুসিয়া গ্রামের শহিদুল ইসলামের স্ত্রী এবং তিন সন্তানের জননী।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ঈশ্বরদী উপজেলার দাশুড়িয়া ইউনিয়নের দরগাপাড়া এলাকায় বিষপানে আত্মহত্যা করা ওই গৃহবধূ মুর্শিদা খাতুনের স্বামী শহীদুল পেশায় রিকশাচালক।

পেশাগত কারণে তিনি ঢাকায় থাকেন। কিছুদিন আগে সেখানে তিনি দ্বিতীয় বিয়ে করেছেন- এমন খবর এলাকায় চাউর হলে পরিবারের চাপের মুখে পড়েন শহীদুল। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মনোমালিন্য ও ঝগড়া চলছিল। এরই জেরে সবার অগোচরে মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) দুপুরের দিকে বিষপান করেন মুর্শিদা।

বিকেলে বিষয়টি টের পেয়ে দ্রুত ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান পরিবারের লোকজন। এসময় মুর্শিদার অবস্থার অবনতি হলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কর্তব্যরত চিকিৎসক রামেক হাসপাতালে রেফার করেন। সেখানেই চিকিৎসাধীন তার মৃত্যু হয়।

এ তথ্য নিশ্চিত করে ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অরবিন্দ সরকার বাংলানিউজকে জানান, পারিবারিক কলহের জেরে বিষপানে মুর্শিদা খাতুন নামে এক গৃহবধূর আত্মহত্যার ঘটনা শুনেছি। পরিবারের লোকজনের কোনো অভিযোগ না থাকায় ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ হস্তান্তরের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে ঈশ্বরদী থানায় একটি অপমৃত্যু (ইউডি) মামলা হয়েছে বলেও জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।