পরীক্ষা শেষে স্কুলছাত্রীকে নিয়ে পালালেন প্রধান শিক্ষক

নাটোরের গুরুদাসপুরে নিজ স্কুলের ছাত্রীকে নিয়ে পালানোর অভিযোগ উঠেছে খোদ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। উপজেলার নাজিরপুর মরিয়ম মেমোরিয়াল বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফিরোজ আহমেদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ উঠেছে। শনিবার (১ অক্টোবর) রাতে ওই ছাত্রীর মা বাদী হয়ে গুরুদাসপুর থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেছেন।

মামলার বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, অপহৃত ছাত্রীৱ মাকে ধর্ম আত্মীয় বানিয়ে তাদের বাড়িতে যাতায়াত করতো নাজিরপুর মরিয়ম মেমোরিয়াল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফিরোজ আহমেদ (৪৮)। তিনি নাজিরপুর গ্রামের মৃত গোলাম মোস্তফার ছেলে। শনিবার এসএসসি ব্যবহারিক পরীক্ষা শেষে ধর্ম আত্মীয় ভাগ্নিকে জোরপূর্বক মাইক্রোবাসে উঠিয়ে নিয়ে তার রাজশাহীর বাড়িতে অবস্থান করে ওই প্রধান শিক্ষক।

মেয়ে বাসায় না ফেরায় বাবা-মা খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে তার এক আত্মীয় তাকে জানান শনিবার সকালে প্রধান শিক্ষক এবং তার ভাইসহ একটি মাইক্রোবাসে করে উঠিয়ে নিয়ে রাজশাহীর এলাকায় লুকিয়ে রেখেছেন তার মেয়েকে।

পরে প্রধান শিক্ষকের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তার পরিবার মেয়েকে ফিরিয়ে দেয়ার আশ্বাস দেন। কিন্তু তার মেয়েকে ফিরিয়ে না দিয়ে কালক্ষেপণ করতে থাকেন। এ সময় রাত ১০টার দিকে তার মেয়েকে ফেরত দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে তারা গুরুদাসপুর থানা এসে অপহরণ মামলা করেন ওই প্রধান শিক্ষক ও তার ভাইয়ের বিরুদ্ধে।

এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক ফিরোজ আহমেদের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলেও তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মো. আব্দুল মতিন জানান, এ ব্যাপারে ওই ছাত্রীর মা বাদী হয়ে একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেছেন। মেয়েটিকে উদ্ধার, দোষীদের গ্রেপ্তারসহ আমরা দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

Leave a Comment