নিজের জন্য কবর খুঁড়ে আত্মহত্যার হুমকি!

বরিশালের আগৈলঝাড়ায় ভাইয়ের সঙ্গে ভবনের মালিকানা নিয়ে বিরোধের জের ধরে নিজের জন্য কবর খুঁড়ে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করেছেন সাবেক ইউপি সদস্য। সমাধান না হলে স্ত্রী ও সন্তানদের জন্য আরও ৪টি কবর খুঁড়ে পরিবারের সবাইকে নিয়ে আত্মহত্যার হুমকি দিয়েছে তিনি।

যদিও এ ব্যাপারে পরস্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে। স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার রাজিহার ইউনিয়নের চেগুটিয়া গ্রামের মৃত. তোতা তালুকদারের ছেলে সাবেক ইউপি সদস্য ডব্লিউ তালুকদার ১০-১২ বছর আগে পৈত্রিক জায়গায় একটি একতলা পাকা ভবন নির্মাণ করেন। নির্মাণের কিছুদিন পরে দেনার দায়ে ডব্লিউ তালুকদার ভবননি নিজ ভাই বাহালুল তালুকদার ওরফে তারেকের কাছে বিক্রি করেন।

বাহালুল তালুকদার ভবনটি বসবাসের উপযোগী করে পরিবার নিয়ে বসবাস করে আসছেন। সম্প্রতি ওই ভবনের মালিকানা নিজের দাবি করে সাবেক ইউপি সদস্য ডব্লিউ তালুকদার টাকা দাবি করেন। দাবিকৃত টাকা না পেয়ে নিজ বাড়ির পারিবারিক কবরস্থানে নিজের জন্য নিজেই একটি কবর খোঁড়েন তিনি। স্ত্রী ও সন্তানদের জন্য আরও ৪টি কবর খুঁড়ে পরিবারের সবাইকে নিয়ে আত্মহত্যা করার হুমকি দেন ডব্লিউ তালুকদার। এ ঘটনায় চেগুটিয়া গ্রামে আতঙ্কে সৃষ্টি হয়েছে।

পাকা ভবন ফিরে পাওয়ার জন্য ডব্লিউ তালুকদার থানায় লিখিত অভিযোগও দায়ের করেছেন।শনিবার (১৯ নভেম্বর) সকালে সরেজমিনে উপজেলার চেগুটিয়া গ্রামে স্থানীয় সাংবাদিকরা গিয়ে দেখতে পান সাবেক ইউপি সদস্য ডব্লিউ তালুকদার আত্মহত্যা করার জন্য একটি কবর খুড়ছেন। এ সময়
ডব্লিউ তালুকদার সাংবাদিকদের জানান, আমি পরিবারসহ ঢাকায় এক বছর আগে বেড়াতে গেলে ভবনের তালা ভেঙে বড় ভাই বাহালুল তালুকদার দখলে নিয়ে পরিবারসহ বসবাস করে আসছেন। ভবন ফিরে পাওয়ার জন্য বিভিন্ন লোকের কাছে ধর্না দিয়েও কোনো সমাধান পাইনি। এ কারণে আমি বিভিন্ন বাড়িতে ছেলে-মেয়ে, স্ত্রী নিয়ে অতি কষ্টে জীবনযাপন করছি। ভবনের সমাধান না পেলে পরিবারের সবাইকে নিয়ে আত্মহত্যার করার জন্য কবর খুঁড়ছি!

এ ব্যাপারে বাহালুল তালুকদার বাড়িতে না থাকায় কথা হয় তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকীর সঙ্গে। তিনি বলেন, ২৬ লাখ টাকায় ওই ভবন আমার দেবর ডব্লিউ তালুকদারের কাছ থেকে আমরা কিনে নিয়ে বসবাস করে আসছি। বর্তমানে ডব্লিউ তালুকদার কবর খুঁড়ে যে নাটক শুরু করেছে, তাতে আমি ছেলে নিয়ে আতঙ্কের মধ্যে আছি। আমার ছেলে স্কুলে যেতে পারছে না। আমি নিরাপত্তার অভাবে ছেলে নিয়ে গেট বন্ধ করে ভবনের মধ্য থাকি।

রাজিহার ইউপি চেয়ারম্যান মো. ইলিয়াস তালুকদার বলেন, ডব্লিউ তালুকদার আমার পরিষদের ইউপি সদস্য ছিলেন। বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের কারণে এলাকার কেউ তাকে পছন্দ করছে না। ও এখন কবর খুঁড়ে নাটক শুরু করেছে। ওকে আমি ফোনে কবর খুঁড়তে নিষেধ করেছি।আগৈলঝাড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাজহারুল ইসলাম জানান, ডব্লিউ তালুকদারের লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। কবর খোঁড়ার কথা শুনে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। কবর খোঁড়ার ঘটনা তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Comment