ধর্ষণ ও প্রাণনাশের হুমকির শিকার নেহা খান

পাকিস্তানের একমাত্র নারী ডিজে নেহা খানের সাফল্য এবং খ্যাতি এখন আকাশছোঁয়া। তবে তাঁর এই যাত্রাপথ মোটেও সহজ ছিল না। তাঁর ক্যারিয়ার বহুবার বাধাগ্রস্থ হয়েছে। এমনকি পেশাগত কারণে কিছু লোক তাঁকে বেশ ভালভাবেই টার্গেট করেছিল।

সাম্প্রতিক একটি সাক্ষাৎকারে সবই বললেন নেহা।নেহা বলছেন, আমি একটি মিউজিক্যাল ইভেন্টের পরে কিছু অজ্ঞাত লোকেদের দ্বারা লক্ষ্যবস্তু হয়েছিলাম। কারণ সেই অনুষ্ঠানে তিনিই আমিই একমাত্র নারী শিল্পী ছিলাম। আমাকে সেখানে ধর্ষণের হুমকি দেওয়া হয় এবং ভবিষ্যতে এমন কাজ থেকে দূরে থাকার হুমকি দেওয়া হয়। শুধু তাই নয়, কেউ কেউ তাকে হত্যার হুমকিও দিয়েছিলেন।

নেহা পাকিস্তানের প্রথম এবং একমাত্র নারী ডিজে, যিনি এখন তাঁর সঙ্গীতের জন্য বিশ্বব্যাপী বিখ্যাত। তবে নেহা মিডিয়ার সামনে খুব একটা ধরা দেন না। সম্প্রতি তিনি প্রথম সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে তাঁর ডিজে হয়ে ওঠার পথ কেমন ছিল সেসব বলেন। জানান নারী ডিজে হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার জন্যে তাঁকে কম হয়রানির সম্মুখীন হতে হয় নি।

নেহা খান ওই সাক্ষাৎকারে আরও বলেন যে, তিনি যখন কানাডায় ছিলেন, তখন থেকেই সংগীতের উপর আবেগ জন্মায়। যা পরবর্তীতে তাঁর নেশায় পরিণত হয়। নেহা খান যখন পড়াশোনা শেষ করে পাকিস্তানে ফিরে আসেন। তখনও জোরে কণ্ঠ প্রদানের জন্যে তাঁকে জনসমক্ষে অনেক সমালোচনারও শিকার হতে হয়। কিছুদিন পর বন্ধুদের সহযোগিতায় সুযোগ পেলে সেখান থেকেই শুরু হয় ডিজে কেরিয়ার। নেহা খান বলেন, পাকিস্তানের মতো জায়গায় ডিজে হয়ে ওঠা চারটিখানি কথা ছিল না। নানা কটূক্তির মুখে পড়তে হয়েছিল।

নেহা বলেছিলেন যে, তিনি ২০২১ সালে হুনজা ফেস্টে খেলার পর থেকে পাকিস্তানের অনেক লোকের জীবন তাঁর জন্যে কঠিন হয়ে পড়েছিল। কারণ ওই উৎসবে ছিলেন ৫ জন পুরুষ। যার মধ্যে একমাত্র নারী শিল্পী ছিলেন নেহা খান। যা মৌলবাদী ও চরমপন্থীদের কাছে শোভা পায়নি। সেখান থেকেই হুমকি দেওয়া শুরু হয়। অনেক ফোন আসে। মেসেজ আসে। যার মধ্যে ছিল প্রাণনাশের হুমকি। সেই কারণে তিনি আর পাকিস্তানে ফিরতে পারেননি, কারণ লোকেরা বিমানবন্দরেই তাঁর হত্যা করার হুমকি দিয়েছিল।

Leave a Comment