জায়েদ খান-নিপুণ দ্বন্দ্বের স্থায়ী সমাধান এখনো হয়নি

পূর্ণাঙ্গ রায় না হওয়া পর্যন্ত চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক হিসাবে ‘আপাতত’ দায়িত্ব পালন করবেন নিপুণ- এমন তথ্য জানিয়েছেন নিপুণের আইনজীবী। গতকাল চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে জায়েদ খানের প্রার্থিতা বৈধ বলা হাইকোর্টের রায় স্থগিত করেছেন আপিল বিভাগ।

একইসঙ্গে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে নিপুণের লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) গ্রহণ করে তাকে আপিলের অনুমতি দিয়েছেন আদালত। এর ফলে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক হিসাবে ‘আপাতত নিপুণের দায়িত্ব পালনে বাধা নেই’ বলে দাবি করেছেন নিপুণের

আইনজীবীরা। গতকাল সোমবার প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ এ আদেশ দেন। আদালতে জায়েদ খানের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন অ্যাডভোকেট আহসানুল করিম ও অ্যাডভোকেট নাহিদ সুলতানা যুথী। অন্যদিকে নিপুণের পক্ষে আবেদন করেন ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ।

বিষয়টি নিয়ে জায়েদ খান বলেন, ‘আমি ভোটে নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক। সর্বোচ্চ আদালতের প্রতিও অবশ্যই শ্রদ্ধাশীল। নিশ্চয়ই সুবিচার পাব। তবে এখনো এটি বিচারাধীন। আমি সবসময় অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলেছি, প্রতিবাদ করেছি। আমার সঙ্গে অন্যায় হয়েছে, এটা সবাই দেখেছেন। বাকিটা আমার আইনজীবীরা ক্লিয়ার করবেন শিগ্গির।’

গত ৭ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ শিল্পী সমিতি নির্বাচনের আপিল বোর্ডের প্রার্থিতা বাতিলের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে জায়েদ খানের পক্ষে রিট দায়ের করেন তার আইনজীবী নাহিদ সুলতানা যুথী। সেই রিটের শুনানি নিয়ে জায়েদ খানের প্রার্থিতা বাতিল করে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনের আপিল

বোর্ডের দেওয়া সিদ্ধান্ত স্থগিত করেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে জায়েদ খানের প্রার্থিতা বাতিলের সিদ্ধান্ত কেন অবৈধ হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন আদালত। পরে হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে গত ৮ ফেব্রুয়ারি আপিল আবেদন জানান নিপুণ আক্তার। আপিল বিভাগের চেম্বার জজ আদালতে শুনানির পর গত ৯ ফেব্রুয়ারি এ বিষয়ে আদেশ দেন আদালত।

Leave a Comment