কোনোদিন নীতি-নৈতিকতার বাইরে কোনো কাজ করিনি: মকবুল হোসেন

মেয়াদ শেষ হওয়ার এক বছর আগেই অবসরে পাঠানো তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মকবুল হোসেন বলেছেন, ‘আমি কোনোদিন নীতি-নৈতিকতার বাইরে কোনো কাজ করিনি। যতদিন বেঁচে আছি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নিয়েই বেঁচে থাকব।’

তিনি বলেন, ‘আমাকে অবসরে পাঠানোর কারণ জানি না। তবে সরকার চাইলে যেকোনো সময় যে কাউকে অবসরে পাঠাতে পারেন।’সোমবার সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন মকবুল হোসেন।মকবুল হোসেন বলেন, ‘জীবনে কখনও নীতি-নৈতিকতার সঙ্গে আপস করিনি। আমি বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে যেকোনো সময় প্রস্তুত আছি।’

তিনি বলেন, ‘সৃষ্টিকর্তার একটা পরিকল্পনা থাকে। আমরা যারা ধর্মে বিশ্বাস করি, ইসলামে বিশ্বাস করি, তারা মানি- আমার হয়তো এই পর্যন্তই প্ল্যানিং ছিল। এই পর্যন্তই রিযিক ছিল।’তিনি আরও বলেন, ‘প্রত্যেকটি মানুষের নিজের চেয়ে বড় বিচারক আর কেউ নেই। সুতরাং আমি সেই বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে সবসময় প্রস্তুত।’

তথ্যসচিব মকবুল হোসেনকে রোববার জনস্বার্থে চাকরি থেকে অবসরে পাঠানোর কথা জানায় সরকার। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ‘তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মকবুল হোসেন (৫৫১৪)-কে সরকারি চাকরি আইন, ২০১৮-এর ধারা ৪৫ অনুযায়ী জনস্বার্থে সরকারি চাকরি হতে অবসর প্রদান করা হলো।’

এদিকে সোমবার তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ মকবুল হোসেননে অবসরে পাঠানোর বিষয়ে বলেন, ‘কাল দেখেছি। কী কারণ, এটা আমি জানি না। অন্তর্নিহিত কারণ জানি না। এটা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় বলতে পারে।’